নয় বছরের বাচ্চা’র আত্মহত্যা, এলাকাবাসীর কাছে রহস্যজনক

0 15

বরিশালের একদম পশ্চিম শেষ সিমান্তে , বরিশাল আগৈলঝাড়া এবং কোটালীপাড়া সীমানা ঘেষে এ ঘটনা ঘটে। বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের খাজুরিয়া গ্রামের বাসিন্দা নুসরাত। নুসরাত জাহান নোহা(৯) দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমির তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী। তার মা ও নানি আত্মহত্যা করেছে মানতে নারাজ গ্রামবাসী। সম্পত্তির জন্য সৎমা ঝুমুর বেগম পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে প্রচার চালিয়েছে,

নুসরাতের নানি তাসলিমার অভিযোগ। এলাকাবাসী কাছে আত্মহত্যার বিষয়টি রহস্যজনক। এলাকাবাসি বুঝে উঠতে পারছে না আসলে কি ঘটছে। এতটুকু বাচ্চা আত্মহত্যা করবে কিভাবে? এলাকাবাসীর একই বয়ান, শিশুটিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এবং এলাকাবাসী, সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে আসল রহস্য উদঘাটনের দাবি জানান তারা। নুসরাত জাহানের বাবা সুমন মিয়া (৩৫) মামলা দায়ের করেন। 

নুসরাত জাহান দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমিতে পড়াশোনা করে। করোনার মধ্যে স্কুল খুলে এবং সাময়িক পরীক্ষা নেন কর্তৃপক্ষ। পরীক্ষায় আমার মেয়ে ফেল করায় গত বুধবার পাঠকক্ষে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. সফিকুল ইসলাম (২৭) মেয়েকে গালিগালাজ করে এবং বেত দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। স্কুল ছুটির পরে মেয়ে বাড়িতে এসে অপমান সহ্য করতে না পেরে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

স্কুলছাত্রী নুসরাত জাহানের মা তানিয়া আক্তার (৩০) বলেন, আমার মেয়ে নুসরাত জাহান আত্মহত্যা করে নাই। আমার মেয়েকে তার সৎমা ঝুমুর বেগম ও বাবা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়েছে।

নুসরাতের নানি তাসলিমা বেগম (৫০) অভিযোগ করে বলেন, গত রবিবার নুসরাতের দাদা আব্দুর রহিম তার বাড়ি এসে বলেন, তিনি (দাদা) তার জায়গাজমি কিছুদিনের মধ্যে নুসরাতের নামে দলিল করে দেবে। এ কথা তিনি তার ছেলে সুমনকে ও নুসরাতের সৎমা ঝুমুরকে জানিয়ে দিয়েছে। নুসরাত আত্মহত্যা করেনি, সম্পত্তি থেকে তাকে বঞ্চিত করতে সৎমা ঝুমুর বেগম পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে প্রচার করছে।

দারুল ফালাহ প্রি-ক্যাডেট একাডেমি পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. শাখাওয়াৎ হোসেন, শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম, আব্দুল মালেক মিয়া বলেন, স্কুলছাত্রী নুসরাত জাহানের আত্মহত্যার বিষয়টি রহস্যজনক। গ্রামবাসী মানতে নারাজ। তাদের মতে, এটি আত্মহত্যা নয়, পরিকল্পিতভাবে হত্যা। কারণ শিশুটি যেখানে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে সেখানে ওঠা তার পক্ষে সম্ভব নয়। সঠিক তদন্ত করলেই আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে।

বাগধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলাম বাবুল ভাট্টি এ প্রসঙ্গে বলেন, ওইটুকু শিশু আত্মহত্যা করতে পারে বিষয়টি রহস্যনজক।

আগৈলঝাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আফজাল হোসেন বলেন, ঘটনায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়েছে। আমারা আসামি গ্রেপ্তারে অভিজান চালাচ্ছি। মামলা তদন্ত রিপোর্টে সব রহস্য বেরিয়ে আসবে। শিশু নুসরাতের মৃত্যুর সঙ্গে যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.