হাইকোর্টঃ হিন্দু স্বামীর কৃষি জমির ভাগ পাবেন

0 22

৮৩বছর পর আজ হাইকোর্ট রায় দিয়েছে স্বামীর সব জমির ভাগ পাবে হোক তা আবাদ/অনাবাদ।
ঐতিহাসিক রায় দিয়েছেন দেশের সম্পত্তি আইন। বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরীর একক বেঞ্চ এই রায় ঘোষণা করেন।
এই রায়ের ফলে হিন্দু বা সনাতন ধর্মাবলম্বী বিধবা নারীরাও স্বামীর সব সম্পত্তিতে ভাগ পাবেন।
২ সেপ্টেম্বর, বুধবার একটি মামলার চূড়ান্ত শুনানি দেন যে মামলাটি ছিলো এই সক্রান্ত এবং মামলাটির শুনানি দেওয়ার পরে হিন্দু বিধবা আইন রায় দেন।
এ রায়ের মাধ্যমে হিন্দু নারীরা উত্তরাধিকারের স্বীকৃতি পেলেন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। আজ হিন্দু বিধবা তার স্বামীর কৃষি/অকৃষি জমি পাবে। আজ রায়ের মাধ্যমে হিন্দু বিধবা মহিলাদের একটা সন্তুষ্টজনক আস্থা খুজে পেল। এ বিষয়ে আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ নাফিউল ইসলাম বলেন, ‘এতোদিন বাংলাদেশে হিন্দু উত্তরাধিকারিত্বে যারা মৃত ব্যক্তির শ্রাদ্ধে শাস্ত্রমতে পিণ্ডদান করতে পারে তারাই মৃত ব্যক্তির একমাত্র সম্পত্তির উত্তরাধিকার। হিন্দুদের মধ্যে সাধারণত বিধবা নারীরা স্বামীর বসতভিটার মালিকানা লাভ করতেন। আজকের এ রায়ের ফলে হিন্দু বিধবা নারীরা এখন থেকে কৃষিজমিরও ভাগ পাবেন।’
৮৩ বছর ধরে স্বামীর কৃষি জমিতে কোনো প্রাপ্য ছিল না হিন্দু বিধবাদের। বিধবা বৌদি, স্বামীর কৃষি জমি পাওয়ার অধিকার রাখে না- এমন দাবি করে ১৯৯৬ সালে খুলনা কোর্টে মামলা করেন দেবর জ্যেতিন্দ্রনাথ  মন্ডল। এতে নিম্ন আদালত বলেন, বিধবারা স্বামীর অকৃষি জমির অধিকার রাখলেও কৃষি জমির রাখেন না। আপিল করার পর জেলা জজ দিলেন ভিন্নমত। ওই রায়ে বলা হয়, বিধবারাও স্বামীর কৃষি জমির অংশীদার হবেন। বিষয়টি গড়ালো উচ্চ আদালতে।
প্রসঙ্গত, ১৯৩৭ সালে হিন্দু বিধবা সম্পত্তি আইনে, বিধবা নারীদের স্বামীর অকৃষি জমির অধিকার দেয়া হলেও কৃষি জমিতে বঞ্চিত করা হয়। আইনটি নিয়ে দুপক্ষের দীর্ঘ শুনানি শেষে অ্যামিকাস কিউরির মত নেন হাইকোর্ট। এরপর হিন্দু বিধবা নারীরা অকৃষি জমির মতো স্বামীর কৃষি জমিরও মালিক হবেন বলে রায় দেন বিচারক।
এক হিন্দু বিধবা নারীর আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ নাফিউল ইসলাম বলেন, “এতদিন বাংলাদেশে হিন্দু উত্তরাধিকারিত্বে যারা মৃত ব্যক্তির শ্রাদ্ধে শাস্ত্রমতে পিণ্ডদান করতে পারেন তারাই মৃত ব্যক্তির একমাত্র সম্পত্তির উত্তরাধিকার। হিন্দুদের মধ্যে সাধারণত বিধবা নারীরা স্বামীর বসত-ভিটার মালিকানা লাভ করতেন। আজকের এই রায়ের ফলে হিন্দু বিধবারা স্বামীর কৃষি জমিরও ভাগ পাবেন।”

Leave A Reply

Your email address will not be published.